রবিন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেন নি

রবিন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেন নি

রবিন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেন নি বইটি ডাউনলোড করে নিন এখান থেকে। গ্রন্থটি লিখেছেন মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন। বইটির পিডিএফ ডাউনলোড করে নিন এখান থেকে। পুস্তকটি সংগ্রহ করার পাশাপাশি অনলাইনে পড়ার ব্যাবস্থা রয়েছে। এই সাইট থেকে যেকোন বই একদম ফ্রিতে ডাউনলোড-করতে পারবেন। প্রতিটা পুস্তক পাঠকের সুবিধার জন্য ডাইরেক্ট লিংক এ যুক্ত করা হয়েছে।

রবিন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেন নি বইটি প্রথম কিছু সংলাপঃ

সন্ধ্যার অন্ধকার নামার আগেই রাস্তার ওপারে জ্বলজ্বল করে উঠলাে। রবীন্দ্রনাথ।
“ওয়াক থু!” সাইনটার দিকে তাকিয়ে শব্দ করে থুতু ফেললাে রহমান মিয়া। যেনাে বুকের ভেতরে দলাপাকানাে ঘৃণা বেরিয়ে এলাে।“কি মিয়া, কারে থুতু মারলা?” রহমান দেখলাে ভুতের মতাে কোথেকে যেনাে হাজির হয়েছে অতিপরিচিত এক কাস্টমার। লােকটার মুখে দুষ্টহাসি লেগে রয়েছে। ভরসন্ধ্যায় এর মতাে কাস্টমার পেয়ে মােটেও খুশি হতে পারলাে না। কারে আবার মারুম…আজাইরা কথা…মুখে থুতু আইছিলাে ফালায়া দিলাম,” বিরক্ত হয়েই বললাে দোকানি।

“ঐ ডাইনিটার উপরে চেইতা আছে, জানি তাে,” গুলখাওয়া লালচে দাঁত বের-করে বললাে কাস্টমার। এহন তাে আমি ছাড়া কেউ তােমার গুড়ের চা খায় না। খালি বিড়ি-সিগারেট বেইচা কি চলে।” আবারাে লালচে দাঁতগুলাে বিকশিত হলাে। গুড়ের চা বানাতে ব্যস্ত হয়ে পড়লাে রহমান, কথাগুলাে যেনাে আমলেই নিলাে না। “শুড় ইট্ট বাড়ায়া দিও…তুমি কইলাম দিন দিন কিপ্টা হইয়া যাইতাছে মিয়া…গুড় দিবারই চাও-না। পারলে গরম পানি গুলায়া খাওয়াইয়া দিবার চাও।”একমাত্র কাস্টমারের দিকে চকিতে তাকিয়ে বাঁকা হাসি দিলেরহমান। “এতাে মিষ্টি খাইলে ডাইবিটিস হইবাে।” “ঐসব বড়লােকি রােগ আমাগাে হইবাে না।

১) নামঃ রবিন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেন নি
২) ক্যাটাগরিঃ উপন্যাস / গল্প
৩) সিরিজঃ নাই
৪) লেখকঃ মোহাম্মদ নাজিম
) পিডিএফ সাইজঃ ১২এমবি
৬) পৃষ্ঠাঃ ২৬৯

বইটির ২ টি ভিতরের ছবি যুক্ত করা হলো। ছবি ২ টি JPG ফরমেটে আপলোড করা হলো।

বিঃদ্রঃ রবিন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেন নি বইটির কোয়ালিটি চেইক করতে পারবন। বই-টি ভালো লাগলে, অবশ্যই নিচের কমেন্ট বক্সে অতিবাহির করবেন। আপনার পছন্দের আরো কোন লেখা থাকলে আমাদের মেইল করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Alert: লেখাগুলো সুরক্ষিত রয়েছে !!